বর্তমান সময়ে তরুণদের কাছে সবচেয়ে আলোচিত ফ্রিল্যান্সিং একটি ক্যারিয়ারের নাম ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট। যদিও আমাদের দেশে এখনও পর্যন্ত এ বিষয়টি নতুন, কিন্তু অনেক ফ্রীল্যান্সার এর মাধ্যমে নিজেদের ভাগ্য সম্পূর্ণরূপে পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছে। পড়ালেখা শেষ করে বা পড়ালেখার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং- এ গড়ে নিতে পারেন ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার। ওয়েব সাইট ডেভেলপমেন্ট হচ্ছে মাল্টি বিলিয়ন ডলারের একটা বিশাল মার্কেট। কাজের মূল্য কমানোর জন্য উন্নত দেশগুলো আউটসোর্সিং করে থাকে। আমাদের পাশের দেশ পাকিস্তান ও ভারত সেই সুযোগটি খুবই ভালভাবে কাজে লাগিয়েছে।

Online skill bd – ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট

আমরাও যদি ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এর বিশাল বাজারের সামান্য কিছু অংশ কাজে লাগাতে পারি তাহলে এটা হতে পারে আমাদের অর্থনীতি মজবুত করার একটি শক্ত হাতিয়ার।

ওয়েবসাইট কি?

ওয়েবসাইট হলো অনলাইনে ভার্চুয়াল একটি ঠিকানা যা কোন নির্দিষ্ট ওয়েব সার্ভারে ইনডেক্স রাখা বিভিন্ন ধরনের ওয়েব পাতা, আপলোড ছবি, অডিও, ভিডিও এবং অন্যান্য বিষয় ডিজিটাল তথ্যের সমষ্টিকে বোঝায়, যা আমরা ইন্টারনেট কানেকশন বা ল্যানের মাধ্যমে অ্যাক্সেস করতে পারি অর্থাৎ আমরা দেখতে পাই। এক কথায় বলা যাই, আমরা অনলাইনে যে ওয়েব পেজে থাকি বা কোন একটি ভার্চুয়াল ঠিকানায় অবস্থান করি মূলতঃ সবগুলোয় এক একটি ওয়েবসাইট। বোঝানোর ধরন অনুযায়ী একেক জন একেক ভাবে বলে তবে, ওয়েবসাইট মূলত এটাই।

কারা ওয়েব ডেভেলপার?

Online skill bd – কারা ওয়েব ডেভেলপার

যারা ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট করে তারাই ওয়েবসাইট ডেভেলপার। আমরা যদি স্বাভাবিকভাবে ভাবি- আমাদের সচরাচর জীবন-যাপনে একজন ইঞ্জিনিয়ার কি করে তাহলেই বুঝতে পারবো ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট কি বা কারা এটা তৈরি করে। আমাদের খুব পরিচিত ফেইসবুক কে যদি কল্পনা করি এটা কি এবং কে এটা বানিয়েছে? তাহলেই সব প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবো আশা করি। অর্থাৎ, ফেইসবুক একটা ওয়েবসাইট আর এটা যে ডেভেলপমেন্ট করেছে সেই ওয়েবসাইট ডেভেলপার। আপাতত ওয়েব ডেভেলপার বিষয়টা ক্লিয়ার।

আমি কি ওয়েব ডেভেলপার হতে পারব?

এটা একটি খুব সাধারণ প্রশ্ন এবং হাস্যকরও বটে! আজ মানুষ বিশ্ব জগৎকে জয় করছে শুধুমাত্র কঠোর পরিশ্রম, মেধা, ধর্য্য ও সাহস দ্বারা। একটি কথা মনে রাখবেন এটা যখন একটি মানুষের দ্বারা সম্ভম তখন আপনিও পারবেন। আর কোনো কাজ জেতার আশা নিয়ে পরিকল্পনা করবেন তাহলে প্রথমবার সফল না হলেও পরবর্তীতে সফল হবেন। আপনার যদি লক্ষ্য থাকে পুটি মাছের বড়শি দিয়ে বোয়াল মাছ ধরবো তাহলে কখনোই বোয়াল ধরতে পারবেন না এমনকি পুটি মাছও পাবেন না। কারণ, আপনার লক্ষের সাথে কর্মের কোন মিল নেই। অতএব, ওয়েব ডেভেলপার হতে যে ধরনের শিক্ষা নেবার প্রয়োজন তা অবশ্যই নিতে হবে। আর সব যদি ঠিকঠাক থাকে তবে না হবার কিছু নেই।

শিক্ষাগত যোগ্যতা কেমন প্রয়োজন?

আসলে এই ধরণের কোন ম্যাথ (অংক) নেই যে, নির্দিষ্ট শিক্ষিতের বাহিরে কেউ এটা পারবে না। তবে, আপনাকে মনে রাখতে হবে যেহেতু এটা একটি বিদেশী ভাষা (ইংরেজী) সেহেতু, এই ভাষার উপর আপনার ভালো রকম দক্ষতা থাকা প্রয়োজন। তাই কমপক্ষে ইন্টার মিডিয়েট পাশ না হলে কেমন হয় তারপরও যদি ইন্টার মিডিয়েট হয় তবে তাকে ইংলিশে ভালো দখল থাকাটা জরুরী। সেজন্য, গ্রাজুয়েট বা উপরে হলে ভালো হয়। তবে আপনি এটা ভাববেন না যে, আমি তো মাস্টার্স কমপ্লিট আমার ঠেকাই কে। এমনটা ভাবা বোকামী ছাড়া আর কিছুই না। কারণ, আমি এমনও মানুষ দেখেছি যাঁরা নিজেকে মাস্টার্স কমপ্লিট বলে দাবি করে বাট তাঁদের মধ্যে ইংলিশ স্কিল একেবারেই নেই। এক কোথায় আপনাকে অবশ্যই বেসিক ইংলিশ ভালো হতে হবে নতুবা এখানে কাজ করা পসিবল না।

কেন হবেন ওয়েব ডেভেলপার?

আমি যদি আপনাকে বলি কেন হবেন একজন ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার? এই প্রশ্নের জবাব আপনার কাছে নেই। আমাদের লাইভ-এ ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার কে আমরা বেশী প্রাধান্য দিই। এর কারণ কি? কারন হচ্ছে এই দুটা খুব লাভজনক পেশা। তেমনি অনলাইন জগতে এমন কিছু পেশা আছে যেটা চোঁখ বন্ধ করে নেওয়া যাই আর তার মধ্যে একটি হলো- ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এর কাজ। এটা এমন একটি অনলাইন পেশা যার চাহিদা এই জগতে আকাশচুম্বী। তাই, এই কাজ যদি আপনি ভালোভাবে শিখতে পারেন তবে বলা যাই আপনার আর পিছনে তাঁকাতে হবে না। আপনার কদর দিন দিন বাড়তেই থাকবে এবং প্রচুর ইনকাম করতে পারবেন যা কল্পনা অতীত।

কতটা সময় প্রয়োজন?

ওয়েবসাইট ডেভেলপার হতে নির্দিষ্ট কোন সময় দিয়ে গণনা করা যাই না। তবে, আপনি যদি এর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শিখে একজন ভালো মানের ওয়েব সাইট ডেভেলপার হতে চান তাহলে ধরে নিতে পারেন ৬ মাস থেকে ১ বছর সময় লাগবে। আর এটা একজন প্রফেশনালী ডেভেলপারের হিসাব। আপনি হয়তো বলতে পারেন ১/২ মাসের মধ্যেই তো এটা শেখা পসিবল তাহলে এতো সময় কেন? আমি কিন্তু, বলেছি পেশাদারী কোন ডেভেলপারের কথা নোট টেম্পোরারি। আমরা অনেকেই মনে করি অনলাইন থেকে খুব অল্প সময়ের মধ্যে সফলতা পাওয়া সম্ভম কিন্তু উত্তর হলো না। আপনাকে মনে রাখতে হবে এখানে নির্দিষ্ট কোন কাজের বিনিময়ে আপনাকে টাকা পে করা হয় এবং কোন কোম্পানী বা বায়ার তখনই আপনাকে হায়ার করে যখন দেখে আপনার সংশ্লিষ্ট কাজের প্রতি যথেষ্ট অভিজ্ঞতা আছে।

কেমন আয় করা যাই?

Online skill bd – কেমন আয় করা যাই

ইনকামের দিক দিয়ে ওয়েবসাইট ডেভেলপার খুব ভালো রোজগার করতে পারে। কারণ, আমি পূর্বেই বলেছি অনলাইনে এর চাহিদা অনেক বেশী আর যে পেশগুলো বেশী চাহিদার হয় তার ডিমান্ড ও অনেক বেড়ে যাই। আমার জানা মতে বাংলাদেশে অনেক ডেভেলপার আছে যারা আপওয়ার্ক, ফ্রীলান্সার ও ফাইবার থেকে প্রতি মাসে ভালো ইনকাম করে। যাদের ইনকামের পরিধিটা ১ লাখেরও উপরে। তাই এখানে আপনাকে রোজগারের কথা এতো বেশী ভাবার প্রয়োজন নেই। আপনি প্রথমে এই বিষয়ে ভালো স্ক্রিল ভেডেলপমেন্ট করেন তারপর আপওয়ার্ক, ফাইবার বা ফ্রীলান্সার এমন জায়গাগুলোতে বিড করতে থাকুন। কারণ, প্রথমেই কেউ আপনাকে কাজ দিবে না। যাঁরা আজ সফল তাঁরা সবাই বিড করতে করতে কাজ পেয়েছে কেউ মার্কেটপ্লেসে এসেই কাজ পাইনি। সবাইকে ধর্য্য ধরতে হয়েছে। আপনিও এখানে ধর্য্য ধরে কাজ করেন একদিন দেখবেন আপনার কাজের পরিধি এতো প্রসারিত হয়েছে যে আপনার একার পক্ষে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না। আর সেদিন হিসাব করবেন ওয়েবসাইট ডেভেলপার হয়ে এতো টাকা ইনকাম করা যাই আগে জানা ছিল না।

অনলাইন মার্কেটিং প্লাটফর্ম অ্যামাজন হচ্ছে সবার শীর্ষে। আপনি ভাল ওয়েব ডেভেলপার হয়ে “অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং” করতে পারেন।তবে, তার আগে আপনাকে জানতে হবে যে মার্কেটিং প্লাটফর্ম -এ কাজ করতে হলে আপনার কি কি প্রস্তুতি থাকা প্রয়োজন। আমি এখানে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য যে বাজেট প্রয়োজন তা দেখিয়েছি। যেটা আপনারা দেখতে পারেন-


ওয়েবসাইট ডেভেলপার কি শুধু মার্কেটপ্লেস থেকে ইনকাম করে?

মার্কেটপ্লেস এ যারা কাজ করে অনলাইনের ভাষায় এই কাজকে ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং বলা হয়। কিন্তু, অনলাইনে আর একটা বিশাল ইনকাম প্ল্যাটফর্ম আছে যার নাম হচ্ছে- অনলাইন মার্কেটিং প্ল্যাটফর্ম। আপনি যদি ভালো ওয়েব ডেভলপার হতে পারেন তাহলে আপনি নিজেই অনলাইন মার্কেটিং এর সাথে যুক্ত হয়ে আরো বেশি ইনকাম করতে পারেন। এখানে ইনকামের পদ্ধতি টা এমন যে আপনি এখানে ভালো মানের কিছু “নিস সাইট” তৈরি করে মার্কেটপ্লেস থেকেও বেশি ইনকাম করতে পারেন এবং এটা মার্কেটপ্লেস থেকেও আরো বেশি স্বাধীন। মনে করেন যে এটা আপনার নিজের কাজ তাই এটা স্বাধীন। আপনি যখন মার্কেটপ্লেসে কাজ করেন তখন নিশ্চয়ই কোন একটি বাইরের কাজ করে দেয়ার মাধ্যমে আপনি পেমেন্ট পান। কিন্তু, আপনি যখন দুইটা ভালো মানের ওয়েব সাইট (নিস সাইট) ডেভেলপ করে সেই সাইট এর মধ্যে কোন প্রোডাক্ট আফিলিয়েশন করবেন। এক পর্যায়ে 6 থেকে 1 বছরের মধ্যে আপনার সাইটটি গুগলে রেঙ্ক করবে তারপর আপনি ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম পাবেন। একটি নিশ সাইট থেকে প্রথমে তেমন ইনকাম আসে না তবে আপনি ধৈর্য ধরে যদি কাজ করতে থাকেন তাহলে এক বছর, দেড় বছর বা দুই বছর থেকে ভালো ইনকাম করতে পারবেন যদি আপনি ওই সাইটের জন্য ভালো এসইও করতে পারেন।

সেজন্য, ডেভেলপারদের ইনকাম যে শুধু মার্কেটপ্লেসে আছে এমন না। একজন ভাল ডেভলপার যে কোন জায়গা থেকেই ইনকাম করতে পারে। কারণ- মার্কেটপ্লেসে একজন ডেভেলপার যে ব্যক্তির ওয়েবসাইট ডেভলপমেন্ট করে দেন ওই ব্যক্তি কিন্তু এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অথবা কোন একটি ব্লগ সাইট করে আপনাকে টাকা দেয়। মূল কথা- আপনি যদি একজন ভালো ওয়েব ডেভেলপার হতে পারেন তবে আপনি যে কোন প্লাটফর্ম থেকেই ইনকাম করতে পারবেন নিঃসন্দেহে। আর এই নিয়ে আপনার কোন সন্দেহ থাকার অবকাশ নেই। তাই সর্বপ্রথম আপনাকে ওয়েব ডেভলপমেন্ট ভালোভাবে শিখতে হবে তারপর এই প্লাটফর্ম থেকে ইনকাম করতে পারবেন-

একজন ওয়েব ডেভেলপার শুধু মার্কেটপ্লেসে কাজ করে না। ওয়েব ডেভলপার যদি অনলাইন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে তাহলেও সে মার্কেটপ্লেস থেকে বেশি ইনকাম করতে পারবে। অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং -এর বিস্তারিত গাইডলাইন। এখান থেকে আপনি অনলাইন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের সবকিছুই জানতে ও শিখতে পারবেন-


ভবিষ্যৎ কি?

Online skill bd – ভবিষ্যৎ কি

ভালো কিছুর ভবিষ্যৎ ভালোই হয়। ওয়েবসাইট ডেভেলপার এ যুগের সব থেকে ভালো একটি অনলাইন প্রফেশন যা নিঃস্বন্দেহে বলা যাই। কেউ যদি মনে করে শুধু এই পেশা দিয়েই লাইফটাইম ইনকাম করবে তবে আমার মতে এর থেকে আর ভালো কিছু হয় না। অর্থাৎ, কোন বাঁধা বা সন্দেহ ছাড়াই এটাকে অনলাইন ইনকামের বেস্ট একটি পথ ভাবা যেতে পারে। তবে, আমি যত সহজেই উপরের কথাগুলো বললাম এত সহজেই কিন্তু একজন ওয়েবসাইট ডেভেলপার হতে পারে না। একজন খুব ভালো মানের ওয়েব ডেভেলপার হতে হলে তাকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কাজের প্রতি মনোনিবেশ ও ওয়েবের উপর ভালো স্ক্রিল ডেভেলপমেন্ট থাকা চাই নতুবা প্রতি মাসে ১ লক্ষ টাকা তো দূরের কথা ১ টাকাও ইনকাম করতে পারবে না। সেজন্য, আপনি যদি মনে করেন এই পেশা দিয়ে অনলাইন ক্যারিয়ার শুরু করবেন তবে আর দেরী কেন? আজ থেকেই শুরু করে দিন। তবে হ্যা, কিভাবে শিখবেন বা কোথায় শিখবেন? এর জন্য আমাদের দেশে অনেক ভালো প্রতিষ্ঠান আছে বিশেষ করে ঢাকায় সেখানে আপনি শিখতে পারেন-

অথবা “Online skill BD” থেকে অনলাইন প্রোগ্রামের মাধ্যমেও শিখতে পারবেন। এজন্য নির্দিষ্ট মোবাইল (01712-445666) বা ইমেইলের (onlineskillbd@gmail.com) মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারেন।

এতক্ষন যারা আমার সাথে ছিলেন সবাইকে ধন্যবাদ। আগামী পোস্ট দেখার আমন্ত্রণ জানিয়ে শেষ করবো। সবাই ভালো থাকবেন-

Categories: Development

0 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *